মার্চ মাসের সর্বনিম্ম প্রাইসে আসতে পারে ইউরো-কমার্জব্যাংক

- Advertisement -

টানা ১৩ সপ্তাহ মার্কিন ডলারের বিপরীতে ইউরোর প্রাইস কমছে গতকাল FOMC মিটিংকে কেন্দ্র করে পেয়ারটি কয়েক সপ্তাহের সর্বনিম্ম প্রাইসে হিট করে, আমাদের গত আর্টিকেলে আলোচনা করেছি যে আজ রাত ১২:০০ টার দিকে FOMC মিটিং অনুষ্ঠিত হবে।

মিটিংয়ে নীতি-নির্ধারকদের মন্তব্য মার্কেটে মুভমেন্ট সৃষ্টি করতে পারে।  হাকিশ আলোচনা হলে ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেতে পারে সেক্ষেত্রে মার্কিন ডলারের বিপরীতে ইউরোর দাম কমতে পারে।পেয়ারটি গতকাল এশিয়ান সেশনে আপট্রেন্ড থাকলেও পরবর্তী এফএমসি মিটিং কে কেন্দ্র করে দাম কমতে থাকে পেয়ারটি সর্বনিন্ম ১.১৭৮০ প্রাইসে এসেছিল EURUSD।

গতকালের এফওএমসি মিটিংয়ে নীতিনির্ধারকরা মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করেছিলন।  এছাড়াও মিটিংয়ে একটি অংশ ইকোনমিক অগ্রগতি অব্যাহত থাকলে সম্পদ ক্রয়ের সামঞ্জস্য নিয়ে কয়েকটি যুক্তি দেখিয়েছেন।

তবে গতকালের মিটিং মার্কিন ডলারের পক্ষে ছিল। যা ডলারের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছে। এখন পর্যন্ত মার্কিন ডলার সর্বোচ্চ ৯২.৮৪ প্রাইসে উঠেছে।  ৫ এপ্রিলের পরবর্তীতে ডলার প্রথমবারের মতো ৯২.৮৪ প্রাইসে এসেছে। আজকের সেশনে পুনরায় মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে।  

এছাড়া আজ বিকেল ৫.৩০ মিনিটে ECB Monetary Policy Meeting হবে যা ইউরোর মুবমেন্ট বাড়িয়ে দিতে পারে এবং ECB প্রেসিডেন্ট লেগার্ড বক্ত্যব রাখবেন যার ফলে ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হার বৃদ্ধি এবং আর্থিক নীতিকে ঘিরে ইউরো সমর্থন পেতে পারে। ECB প্রেসিডেন্ট লেগার্ডের সর্বশেষ মন্তব্য দ্বারা EURUSD প্রভাবিত হতে পারে।

পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১৮৫০।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.১৯০০।

অপরদিকে ২১ দিনের এসএমএ অনুযায়ী পেয়ারটি ১.১৭৭০ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড বৃদ্ধি পেতে পারে।  তবে পেয়ারের পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হত পারে মার্চ মাসের সর্বনিম্ম প্রাইস ১.১৭০৩।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here