মার্কিন নিউজ কে কেন্দ্র করে ইউরোর প্রাইস কমতে পারে

- Advertisement -

জুন মাসের শুরু থেকে পেয়ারটি তার আপট্রেন্ড ধরে রেখেছে।
আমরা এর আগেও আমাদের আলোচনায় উল্লেখ করেছি যে কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনসের মতে, EURUSD ফেব্রুয়ারি মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.২২৪৩ অতিক্রম করবে।

EURUSD পেয়ারের ক্ষেত্রে ফেব্রুয়ারি মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.২২৪৩ গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছিলো । পেয়ারটি উল্লেখিত প্রাইস অতিক্রমে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হবে। ।সে ধারাবাহিকতায় পেয়ারটি ১.২২৪৩ অতিক্রম করে ১.২২৬৫ হিট করে কিন্তু পেয়ারটি সর্বোচ্চ প্রাইসে আসলেও ১.২৩০০ প্রাইস আতিক্রম করতে পারে নি। ২৫ মে পেয়ারটি সর্বোচ্চ প্রাইসে আসলেও পরবর্তীতে পেয়ারটি প্রাইস কমে ২৮ মে সর্বনিম্ম ১.২১৩৫ প্রাইসে নেমে আসে।

বর্তমানে পেয়ারটি ১.২২২৫ প্রাইসে অবস্থান করছে,এশিয়ান সেশনে পেয়ারটির সর্বোচ্চ প্রাইস ১.২২৪০ হিট করেছে।
MACD ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ারের আপট্রেন্ড শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। পেয়ারের আপট্রেন্ড আরও স্থায়ী হলে ২০২১ সালের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.২৩৪৯ যেতে পারে এবং ১০০ দিনের মুভিং অ্যাভাজের অনুযায়ী ১.২৫৫৬ প্রাইসে আসতে পারে।

বর্তমানে ডলারের প্রাইস কমে ৮৯.২৫ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ২০২২ সালে সম্ভাব্য বাজেট ৬.০ ট্রিলিয়ন প্রত্যাশার ফলে ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেতে পারে।

আজ পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কয়েকটি নিউজ আছে যা পেয়ারটিকে প্রভাবিত করবে,
রাত ৮.০০ টায় ISM Manufacturing PMI, ISM Manufacturing Prices কে কেন্দ্র করে ডলারের প্রাইস বাড়তে পারে.

পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.২১৭০। পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে মে মাসের মাঝামাঝির প্রাইস ১.২০৬৫।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here