৯ সপ্তাহের সর্বনিম্ম প্রাইসে EURUSD

- Advertisement -

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে পেয়ারটির প্রাইস বাড়লেও এ সপ্তাহ থেকে পেয়ারটির প্রাইস কমতে থাকে,গতকাল এশিয়ান সেশনে সর্বোচ্চ ১.২১৩৩ প্রাইসে উঠলেও পরবর্তী নিউইয়াক সেশনের শেষের দিকে FOMC  মিটিংয়ে  ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে গতকাল মার্কিন ডলারের বিপরীতে EURUSD প্রাইস কমতে থাকে এবং গত কয়েক সপ্তাহের সর্বনিম্ম ১.১৯৯১ প্রাইসের কাছাকছি নেমে আসে।  মার্চ মাসের পরবর্তীতে একদিনের সবথেকে বড় পতন ছিল গতকাল। মূলত ফেডারেল রিজার্ভের ইন্টারেস্ট বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে মার্কিন ডলার শক্তিশালী হয়েছিল।  যা পেয়ারকে বছরের সবথেকে বড় পতনে নিয়ে এসেছে।

আজও পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী ছিলো এশিয়ান সেশনে পেয়ারটি সর্বোচ্চ ১.২০০০ প্রাইসের কাছাকাছি থাকলেও পরবর্তীতে প্রাইস কমে সর্বনিম্ম ১.১৯২০ প্রাইসে নেমে আসে।

এ মাসের শুরুতে আমরা আমাদের পূর্বের আর্টিকেলে উল্লেখ করেছিলাম যে বিনিয়োগকারীদের মনোযোগ ফেডারেল রিজার্ভের ‍মুদ্রানীতির দিকে। যা ডলারকে প্রভাবিত করতে পারে।ফেডারেল রিজার্ভের মিটিং থেকে বুলিশ মন্তব্য আসতে পারে। সেক্ষেত্রে মার্কিন ডলারের বিপরীতে ইউরোর প্রাইস কমতে পারে।

গত সপ্তাহে আমরা উল্লেখ করেছি যে ক্রেডিট সু্ইস অ্যানালাইসিস্টদের মতে, ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী পেয়ারটি ১.১৯৩০ প্রাইসে যেতে পারে।EURUSD বর্তমানে ১.১৯২৩ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে।

পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১৯৭০।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.২০২৫।

অপরদিকে ২১ দিনের এসএমএ অনুযায়ী পেয়ারটি ১.১৯০০ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড বৃদ্ধি পেতে পারে। সেক্ষেত্রে পেয়ারটির পরবর্তী  সাপোর্ট হতে পারে ১.১৮৮৭।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here