মার্কিন ডাটায় প্রভাবিত হতে পারে ইউরো

- Advertisement -

গত সপ্তাহে EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমলেও শেষের দিকে বৃদ্ধি পেয়েছিল।  চলতি সপ্তাহের প্রথমদিন থেকে পেয়ারটির প্রাইস কমছে,গতকাল পেয়ারটি সর্বনিম্ম ১.২০৯৩ প্রাইসে হিট করে। আজ এশিয়ান সেশন থেকে পেয়ারটির প্রাইস পুনরায় বৃদ্ধি পাচ্ছে পেয়ারটি সর্বোচ্চ ১.২১৪৩  প্রাইসে হিট করে,পরবর্তী ইউরোপীয় সেশন থেকে  পেয়ারটি বিয়ারিশে আসার চেষ্টা করছে। বর্তমানে প্রাইস কিছুটা কমে ১.২১২৪ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে।

ইউরোজোন এবং জার্মানের ইভেন্টগুলোর পূর্বে পেয়ারটি নেতিবাচক অবস্থানে থাকতে পারে।আজও ইউরোকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কিছু নিউজ আছে যার মধ্যে অন্যতম German Final CPI m/m,french Final CPI m/m। যা ইউরোকে নেতিবাচক প্রভাবিত করতে পারে।এছাড়া সন্ধ্যা ৬.৩০ মার্কিন Core Retail Sales, PPI, Retail Sales CORE PPI কে কেন্দ্র করে পেয়ারটির  আজ বেশ ভালো মুভমেন্ট হতে পারে ।

এদিকে মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে পেয়ারটি আপট্রেন্ড রয়েছে, বিনিয়োগকারীরা প্রত্যাশা করছেন ফেডারেল রিজার্ভের মনেটারী আউটলুক পরিবর্তন হবে। এমন সম্ভাবনা ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি করছে যার কারনে ইউরোর দাম কমতে শুরু করছে।

ক্রেডিট সুইস অ্যানালাইসিস্টদের মতে, EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমে ১.২১০০-তে আসতে পারে।  ডেইলি চার্টে RSI এবং MACD ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ারের প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

 পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.২১০০। ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ২৩.৬% অনুযায়ী পেয়ারের পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ১.২০৭০।  EURUSD পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে  ১.২০৫০ প্রাইসে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here