GBPUSD – বায়ারদের টার্গেট ১.৩৯০০

- Advertisement -

আজ বৃহস্পতিবার GBPUSD পেয়ার বুলিশ ক্যান্ডেল তৈরি করতে সক্ষম হলেও এখন পর্যন্ত ১.৩৯০০ প্রাইস অতিক্রম করতে পারে নি। যদিও ব্রিটিশ পাউন্ড মার্কিন ডলারের বিপরীতে গত কয়েক দিন তেমন ভাল অবস্থানে নেই।পেয়ারটি দাম বেশ কিছুদিন ধরে কমতে শুরু করেছে,

মার্কিন cpi,core cpi এর নিউজ  খারাপ হওয়ার কারণে মার্কিন ডলারের প্রাইস কমতে শুরু করেছে যার কারনে গতকাল এশিয়ান সেশনে পেয়ারটির দাম কম থাকলেও পরবর্তীতে মার্কিন ডাটাকে কেন্দ্র করে দাম বাড়তে থাকে ।আজও পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কিছু নিউজ আছে দুপুর ১২ টায় প্রকাশিত হবে ব্রিটিশ GDP  ,Construction Output , Prelim GDP q/q,Goods Trade Balance, Index of Services 3m/3m, Industrial Production m/m, Manufacturing Production m/m, Prelim Business Investment q/q। জুন মাসে  ব্রিটিশ জিডিপি -১.৬% কমলেও প্রত্যাশা করা যাচ্ছে জুলাই মাসে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৪.৮% আসতে পারে।  জুনে ইন্ডাস্ট্রীয়াল প্রডাকশন ০.৬% থেকে কমে ০.৩% আসতে পারে। মেনুফেকচারিং প্রডাকশন জুনে ০.১% থেকে বেঁড়ে ০.৪% আসার সম্ভাবনা রয়েছে।এছাড়া  Index of Services 3m/3m ৩.৯৫ থেকে বেঁড়ে ৫.৬% আসতে পারে। ব্রিটিশ ইভেন্টগুলো  আজকের সেশনে  ব্রিটিশ পাউন্ডকে প্রভাবিত করতে পারে।এছাড়া সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে মার্কিন Core PPI m/m, PPI m/m, Unemployment Claims প্রকাশিত হবে   প্রত্যাশা করা হচ্ছে, ইভেন্ট গুলো ব্রিটিশ পাউন্ডের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়ক হতে পারে।

এদিকে কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনস বলেন,  GBPUSD গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ডাউনট্রেন্ডে দিকে যাচ্ছে তবে আজ ব্রিটিশ এবং মার্কিন ডাঁটাকে কেন্দ্র করে পেয়ারটি ১.৩৯০০ প্রাইসে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে পেয়ারের প্রাইস কমে ১.৩৮০০ প্রাইসের নিচে আসলে বড় ধরণের ডাউনট্রেন্ড দেখা যেতে পারে।

 ৫৯ দিনের এস এম এ  অনুযায়ী পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ১.৩৮২০।

পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ১.৩৯০০ এবং পরবর্তীতে পেয়ারটি ১.৪০০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে যেতে পারে।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here