মে মাসের সর্বনিম্ম প্রাইসে আসতে পারে Gbpusd

- Advertisement -

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিন এবং গত সপ্তাহের শেষের দিন থেকে GBPUSD পেয়ারের প্রাইস কমতে শুরু করেছে।  এর ফলে পেয়ারটি জুন মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.৪২৪৮-তে যাওয়ার পরও পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স ১.৪৩০০ প্রাইসে আসতে পারে নি।বৃহস্পতিবার FOMC মিটিংকে কেন্দ্র করে পেয়ারটির প্রাইস অস্বাভাবিক ভাবে দাম কমতে থাকে, জুন মাসের সবথেকে বড় পতন ছিল গতকাল।

মূলত ফেডারেল রিজার্ভের ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে মার্কিন ডলার শক্তিশালী হয়েছিল।  যা GBPUSD পেয়ারকে বছরের সবথেকে বড় পতনে নিয়ে এসেছে। গত কয়েকদিন হঠাৎ করে যুক্তরাজ্যে লকডাউন বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে ব্রিটিশ পাউন্ড দুর্বল অবস্থানে রয়েছে।লকডাউন ব্যবস্থা শিথিল করার চূড়ান্ত পর্যাযে বিলম্ব করার ব্রিটিশ সরকারের সিদ্ধান্ত পাউন্ডের প্রাইস কমছে।

 সপ্তাহের শুরুতে আমরা আমাদের আর্টিকেলে আলোচনা করেছিলাম যে FOMC মিটিং কে কেন্দ্র করে মার্কিন ডলারের বিপরীতে পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে, এছাড়া ক্রেডিট সুইস অ্যানালাইসিস্টদের মতে পেয়ারটি ১.৪০০০ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। সেক্ষেত্রে  পেয়ারের পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ১.৩৯০০।

বর্তমানে পেয়ারটি ১.৩৮৯৮ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে,আজও পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী ছিলো এশিয়ান সেশনে পেয়ারটি সর্বোচ্চ ১.৩৯৪২ প্রাইসের কাছাকাছি থাকলেও পরবর্তীতে প্রাইস কমে সর্বনিম্ম ১.৩৯০০ প্রাইসের  নিচে নেমে আসে।

পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.৩৯৫০।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.৪০০০। আপট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার ক্ষেত্রে ১.৪০০০ প্রাইস ক্রস করা জরুরি।

অপরদিকে ২১ দিনের এসএমএ অনুযায়ী পেয়ারটি ১.৩৮৪০ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড বৃদ্ধি পেতে পারে।  সেক্ষেত্রে পেয়ারটির পরবর্তী  সাপোর্ট হতে পারে মে মাসের সর্বনিম্ম প্রাইস ১.৩৭৯৯।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here