মার্কিন ডাটার পূর্বে ডাউনট্রেন্ডে -GBPUSD

- Advertisement -

ডলারের দুর্বলতাকে কেন্দ্র করে GBPUSD কয়েক দিনের সর্বনিম্মে নেমে এসেছে,,যদিও পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড এখন কিছুটা নমনীয়। ডলার কয়েক সপ্তাহের নিন্ম প্রাইস থেকে রিকভারে দেখা যাচ্ছে। বর্তমানে ডলার ৯২.৭০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে।

আজ বৃহস্পতিবার এশিয়ান সেশনে ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পলিসি ডিসিশনের পূর্বে মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে।  কোভিড-১৯ নিয়ে দুশ্চিন্তা ইকোনমি রিকভারে প্রভাবিত করতে পারে।  এর ফলে নিরাপদ কারেন্সি হিসেবে ডলারের চাহিদা কিছুটা হলেও বৃদ্ধি পাচ্ছে।নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জন উইলিয়ামস বুধবার মন্তব্য করেছন যে সম্পদ টেপারিংয়ের পূর্বে চাকরি মার্কেটে আরও অগ্রগতি প্রয়োজন।  যা ডলারের প্রাইস বৃদ্ধিতে কিছুটা সহায়তা করেছে।গতকাল পেয়ারটি ১.৩৭৮০ প্রাইসে ওপেন হলেও পরবর্তীতে দাম কমে সর্বনিম্ম ১.৩৭২৫ প্রাইসে হিট করে।বর্তমানে পেয়ারটির দাম কিছুটা বেঁড়ে ১.৩৭৬০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভ করছে। 

আজ পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কিছু ইভেন্ট রয়েছে  FOMC মিটিং এবং ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিশেষ মিটিং মার্কেটে মুভমেন্ট সৃষ্টি করতে পারে।  বিনিয়োগকারীদের নজর থাকবে, FOMC মিটিং ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইভেন্টের দিকে।মূলত  রাত ৯.৫ মিনিটে FOMC Member Daly বক্তব্য রাখবেন, এছাড়া আরো বক্তব্য রাখবেন FOMC Member Evans ।এবং রাত ১১ টায় FOMC Member Bowman বক্তব্য রাখবেন। এছাড়া ৬.৩০ মিনিটে  মার্কিন ইভেন্টে Unemployment Claims , রাত ৮.৩০ মিনিটে Natural Gas Storage, রাত ৯ টায় Crude Oil Inventories, এছাড়া রাত ১১ টায় 30-y Bond Auction প্রকাশিত হবে।

কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনসের মতে, GBPUSD পেয়ার ১.৩৭৩০ অতিক্রম করলে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হবে সেক্ষেত্রে পেয়ারটি পরবর্তীতে জুলাই মাসের নিন্ম প্রাইস ১.৩৫৭১ যেতে পারে।

অপরদিকে পেয়ারের আপট্রেন্ড শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে  ১.৩৮৫০ প্রাইসে যেতে পারে।  পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে আগষ্টের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.৩৯৫০ ।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here