মার্কিন রিটেলস সেলসকে কেন্দ্র করে পুনরায় কমতে পারে -GBPUSD

- Advertisement -

মার্কিন ডলারেরে বিপরীতে পাউন্ডের দাম কমছে বেশ কিছুদিন ধরে সপ্তাহের শুরুতে পেয়ারটি দাম বৃদ্ধি পেয়ে ১.৩৯০০ প্রাইসের উপরের গেলেও খুব অল্প সময়ের ব্যাবধানে পেয়ারটি ডাউনট্রেন্ডে চলে আসে। বর্তমানে পেয়ারটি ১.৩৮১১ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে এদিকে  ব্রেক্সিট উদ্বিগ্নতা পাউন্ডের প্রাইস কমাতে সহায়তা করছে। এছাড়াও দেশটির ইকোনমিক ডাটা পেয়ারের মুভমেন্টে সহায়তা করছে।

গত কয়েকদিন মার্কিন ডলারের প্রাইস কমলেও আজ বৃহস্পতিবার ইউরোপিয়ান সেশনে পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিনিয়োগকারীদের বর্তমান নজর আগামী সপ্তাহের ফেডারেল রিজার্ভের পলিসি মিটিংয়ের দিকে।

মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংক খুব তাড়াতাড়ি উদ্দীপনা হ্রাস করবে কিনা তা মিটিংয়ের মাধ্যমে জানা যেতে পারে। বর্তমানে ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ৯২.৫০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। ফেডারেল ওপেন মার্কেট কমিটি (FOMC) টেপারিংয়ের সাথে সাথে ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির ব্যাপারে ইঙ্গিত করছে ।আজ পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কিছু নিউজ আছে , সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে Core Retail Sales m/m, Retail Sales m/m, Philly Fed Manufacturing Index, Unemployment Claims, রাত ৮ টায় Business Inventories m/m, ৮.৩০মিনিটে  Natural Gas Storage।  আজকের সেশনে GBPUSD পেয়ার মার্কিন রিটেইল সেলস দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে। আগস্টে রিটেইল সেলস -১.১% থেকে কমে  -০.৭% আসতে পারে। এবং  আগস্টে কোর রিটেইল সেলস -০.৪% থেকে কমে  -০.১% আসতে পারে। এছাড়া Unemployment Claims আগস্টে ৩ লক্ষ্য ১০ হাজার থেকে বেঁড়ে ৩ লক্ষ্য ২৫ হাজার আসতে পারে।

কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট টিম প্রধান কারেন জনসের মতে পেয়ার ১.৩৯৮৪ প্রাইসে যাওয়া কঠিন হবে । তবে উক্ত প্রাইস অতিক্রমে সক্ষম হলে পুনরায় আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। এক্ষেত্রে পেয়ার ১.৩৯৮৪ প্রাইসে আসতে পারে ।অপরদিকে পেয়ার ১.৩৭৩৪ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।

- Advertisement -

সাম্প্রতিক

- Advertisement -

Related news

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here